গৃহকর্মী থেকে আজ মাইক্রোসফটের অ্যাম্বাসেডর কুড়িগ্রামের ফাতেমা

92

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার রামখানা ইউনিয়নে দাঁড়িয়ে আছে ছায়াঘেরা একটি গ্রাম “ভূইয়াটারী। যেখানে এক ধূলামাখানো দেহেই ঘুরে বেড়াতো কিশোরী ফাতেমা।অভাবের সংসার। এতে বাবা আয়নাল হক নিরুপায় হয়েই ৯ বছর বয়সে তাকে এক লোকের বাড়িতে গৃহকর্মী হিসেবে রাখেন।

পরে ফাতেমার বয়স যখন ১১ বছর।তখন বাবা মা তাকে ২৫ বছর বয়সী এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।এতে আশার আলো পাঠশালা” নামে একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মীবৃন্দ ফাতেমাকে বাল্যবিবাহের ছোবল থেকে রক্ষা করেন এবং তারা ফাতেমার লেখাপড়ার সকল দায়িত্ব নেন। এবার ফাতেমা এক দৃঢ় প্রত্যয় নিয়েই ৪র্থ শ্রেণীতে ভর্তি হয়।এরপর ফাতেমা পিইসি, জেএসসিতে জিপি-৫ এবং এসএসসিতে ৪.৯০ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়।

পাশাপাশি ফাতেমা ডিজিটাল স্কিল কোর্সে ভর্তি হয়ে ইংরেজী ও কম্পিউটার শিক্ষায় নিজেকে দক্ষ করে তোলে।
আর আজ বাংলাদেশের হাজারো কিশোরীদের মধ্য থেকে বিখ্যাত “মাইক্রোসফট বাংলাদেশ” ফাতেমা কে তাদের নিজেদের প্রতিষ্ঠানের একজন ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে নির্বাচিত করেছেন।এদিকে ফাতেমার এই সাফল্য দেখে আজ ভুইয়াটারী গ্রামবাসী আনন্দে ভাসতেছে।